মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

কী সেবা কীভাবে পাবেন




অত্র দপ্তরের গুরুত্বপূর্ণ  সেবাসমুহঃ-

১। বিদেশগামী কর্মীদের অনলাইনে নাম রেজিষ্ট্রেশন ও ফিঙ্গার প্রিন্ট গ্রহণ।  

২। বিদেশগামী কর্মীদের হয়রানী ও প্রতারণা রোধ এবং মানব পাচার প্রতিরোধের লক্ষে সচেতনতা বৃদ্ধিমূলক প্রচার-প্রচারনা কার্যক্রম পরিচালনা করা।

৩। বিদেশে মৃত্যুবরণকারী কর্মীদের লাশ দেশে ফেরত আনায়ন, লাশ পরিবহন ও দাফন খরচ বাবদ আর্থিক সাহায্য, মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণ/বকেয়া পাওনা ও ইন্সুরেন্স-এর অর্থ আদায় এবং আর্থিক অনুদান প্রাপ্তিতে সহায়তা প্রদান।

৪। বিদেশ গমনে হয়রানি বা প্রতারিত হলে অভিযোগ গ্রহণ এবং প্রতিকার প্রাপ্তিতে সহায়তা প্রদান।

৫। বৈধ পথে বিদেশে যাওয়ার উপায় সম্পর্কে পরামর্শ প্রদান। 

৬। প্রবাসী কর্মীর মেধাবী সন্তানদের শিক্ষা বৃত্তি প্রদান।

৭। বিদেশ থেকে অসুস্থ/নির্যাতিত হয়ে ফেরত আসা কর্মীদের চিকিৎসার জন্য আর্থিক সহায়তা প্রদান।

জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অফিস, সাতক্ষীরা‘র ফেব্রুয়ারী/২০২০ ইং মাস পর্যন্ত বিভিন্ন কার্যক্রমের প্রতিবেদনঃ-

১। অত্র দপ্তরে বিদেশ গমনেচ্ছু কর্মীদের অনলাইন ডাটাবেজে নাম রেজিষ্ট্রেশনের কার্যক্রম শুরু হয় সেপ্টেম্বর/২০১২ থেকে এবং ফিঙ্গারপ্রিন্ট গ্রহণের কার্যক্রম শুরু হয় ৩১ জানুয়ারী/২০১৮ থেকে।    ফেব্রুয়ারী/২০২০ মাসে বিদেশগামী কর্মিদের অনলাইন ডাটাবেজে নাম রেজিষ্ট্রেশনসহ ফিঙ্গার প্রিন্ট গ্রহণ করা হয়েছে পুরুষ- ১৫৩ জন, মহিলা- ৪৬ জন, মোট- ১৯৯ জন কর্মীর। শুরু থেকে         বর্তমান মাস পর্যন্ত রেজিষ্ট্রেশন করা হয়েছে পুরুষ- ৭৮৫১ জন, মহিলা- ১৮২১ জন, মোট- ৯৬৭২ জন কর্মীর,এবং শুরু থেকে বর্তমান মাস পর্যন্ত ফিঙ্গার প্রিন্ট গ্রহণ করা হয়েছে পুরুষ- ৪৬০১         জন, মহিলা- ১৬১২ জন, মোট ৬২১৩ জন কর্মীর।

২। বিদেশে আটকে পড়া/নির্যাতিত সাতক্ষীরা জেলার কর্মীদের ফেরত আনা হয়েছে ২৬৪ জনকে।

৩। বিদেশে মৃত্যুবরনকারী কর্মীদের লাশ পরিবহন ও দাফন খরচ বাবদ আর্থিক সাহায্য প্রাপ্তির জন্য আবেদন পত্র পাওয়া গিয়াছে- ২২টি  এবং ৩৫,০০০/- হাজার টাকার চেক বিতরন করা হয়েছে-           ১০টি, টাকার পরিমান ৩,৫০,০০০/- টাকা। ২০১৩ সাল থেকে লাশ পরিবহন ও দাফন খরচের চেক সরাসরি বিমানবন্দর থেকে প্রদান করা হয়। 

৪। বিদেশে মৃত্যুবরনকারী কর্মীদের মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণ/বকেয়া বেতন ও ইন্সুরেন্স এর অর্থ প্রাপ্তির জন্য আবেদন-পত্র পাওয়া গিয়েছে- ৫০ টি এবং ক্ষতিপূরন বাবদ চেক হস্তান্তর করা হয়েছে - ১৪       টি, যার টাকার পরিমান ৮১,০৮,১৮৬/- (একাশি লক্ষ আট হাজার একশত ছিয়াশি) টাকা।

৫। বিদেশে মৃত্যুবরনকারী কর্মীদের ওয়ারিশদের নিকট হতে আর্থিক অনুদান প্রাপ্তির জন্য আবেদনপত্র/দায়মুক্তি সনদসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র পাওয়া গিয়েছে ১০৫ টি এবং আর্থিক অনুদানের          চেক  হস্তান্তর করা হয়েছে- ৭৭ টি, যার টাকার  পরিমান ২,০০,২৯,১৬৭/-(দুই কোটি  উনত্রিশ হাজার একশত সাতষট্টি) টাকা। উল্লেখ্য যে, মার্চ/২০১৯ থেকে আর্থিক অনুদানের অর্থ ওয়েজ আর্নার্স     কল্যাণ বোর্ড হতে সরাসরি মৃতের ওয়ারিশদের ব্যাংক হিসাব নম্বরে প্রেরণ করা হচ্ছে।

৬। ফেব্রুয়ারী/২০২০ পর্যন্ত বিদেশ হতে অসুস্থ্য হয়ে ফেরত আসা কর্মীর নিকট হতে আর্থিক সাহায্যের জন্য আবেদন পত্র পাওয়া গিয়েছে ৪ টি এবং আর্থিক সাহায্যের চেক হস্তান্তর করা হয়েছে ৩        টি, টাকার পরিমান ২,৫০,০০০/- (দুই লক্ষ পঁঞ্চাশ হাজার) টাকা। 

৭। ফেব্রুয়ারী/২০২০ পর্যন্ত ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ড হতে শিক্ষাবৃত্তির জন্য প্রবাসী কর্মীর মেধাবী সন্তানদের চেক হস্তান্তর করা হয়েছে ২৪ টি, টাকার পরিমান ৪,০৭,১০০/- (চার লক্ষ সতের               হাজার একশত) টাকা । জানুয়ারী/২০১৮ থেকে শিক্ষাবৃত্তির জন্য আবেদনপত্র সরাসরি/ডাকযোগে ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডে প্রেরণ করতে হয় এবং শিক্ষাবৃত্তির টাকা শিক্ষার্খীর মায়ের নামে           খোলা রকেট এ্যাকাউন্টে সরাসিরি প্রেরণ করা হয়।

৮। বিদেশ গমনেচ্ছু মহিলা ও পুরুষ কর্মীদের হয়রানী ও প্রতারণা রোধের লক্ষ্যে জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে সভা/সেমিনারের মাধ্যমে প্রচার-প্রচারণার কার্যক্রম করা হয় এবং নিরাপদ                 অভিবাসন সংক্রান্ত পুস্তিকা, লিফলেট, পোষ্টার ও স্টীকার বিতরণ করা হয়। বর্তমান মাসে সদর উপজেলার সাতক্ষীরা পৌরসভা, ধুলিহর ও ব্রক্ষ্মরাজপুর ইউনিয়ন এবং কলারোয়া উপজেলার              হেলাতলা ইউনিয়ন পরিষদে গমন পূর্বক প্রয়োজনীয় তথ্য সম্বলিত পুস্তিকা, লিফলেট, ব্রুশিয়ার ইত্যাদি বিতরণ করা হয়েছে।

৯। বর্তমান মাস পর্যন্ত বিদেশে নির্যাতিত মহিলা কর্মীদের ফেরত আনার জন্য আবেদনপত্র পাওয়া গিয়েছে ২৮টি। তন্মধ্যে ফেরত আনা হয়েছে ১৫ জনকে এবং অবশিষ্টগুলো প্রক্রিয়াধীন আছে।

 

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter